সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১১ রবিউস সানি , ১৪৪১ | ০৯:৩১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :

বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবারের হরতালে বিএনপির সমর্থন      আগামী জাতীয় নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় এখনো আসেনি বলে মন্তব্য করেছেন নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম       ফার্মগেট এলাকায় শুরু হয়েছে মেট্রোরেলের কাজ       রাজশাহীর জঙ্গি আস্তানায় র‌্যাবের অভিযানে নিহত ৩      তোরাব আলী খালাস, কারাগারে পিন্টুর মৃত্যু      ফারমার্স ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদ ছাড়লেন মখা আলমগীর      চাঁপাইনবাবগঞ্জে র‌্যাবের অভিযান, নিহত ২       চাঁপাইনবাবগঞ্জে চরে ‘জঙ্গি আস্তানায়’ বিস্ফোরণ      আগামীকাল স্থায়ী কমিটির বৈঠক ডেকেছেন খালেদা জিয়া       স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৩য় ম্যাচে জিততে হলে বাংলাদেশকে করতে হবে ৩৭০     

X
মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০১৯ ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

মোয়াজ্জেমকে সোনাগাজী পুলিশের কাছে হস্তান্তর

img

ফেনীর নুসরাত হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার সোনাগাজী থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনকে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছ থেকে বুঝে নিয়েছে সোনাগাজী থানা পুলিশ। সোমবার (১৭ জুন) দুপুরে তাকে হাজির করা হবে ঢাকার আদালতে।

রোববার (১৬ জুন) রাজধানীর শাহবাগ থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মোয়াজ্জেমকে হস্তান্তর করার বিষয়ে জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে সোনাগাজী থানার এখনাকার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঈনুদ্দিন আহমেদ বিডি২৪লাইভকে জানান, আমরা তাকে বুঝে পাইনি এখনও। তবে তাকে হস্তান্তরের প্রকিয়া চলছে। এরপর উপরস্ত কর্মকর্তাদের নির্দেশ অনুযায়ী তাকে আদালতে হাজির করা হবে।

থানায় অভিযোগ করতে আসা ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফির সঙ্গে কথোপকথনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেন ওসি মোয়াজ্জেম। এ ঘটনায় করা মামলায় তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

গোয়েন্দা সংস্থা ও পুলিশ সূত্র জানায়, ওসি মোয়াজ্জেম শনিবার (১৫ জুন) রাতে তার এক আত্মীয়ের বাসায় ছিলেন। রোববার হাইকোর্টে গেলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

মোয়াজ্জেমের দূর সম্পর্কের আত্মীয় খায়রুল ইসলাম বলেন, জামিনের জন্য মোয়াজ্জেম গিয়েছিলেন আদালতে। পরে শুনানির তারিখ পিছিয়ে সোমবার দিলে পুলিশ মোয়াজ্জেমকে গ্রেফতার করে বিকেল চারটায়। মোয়াজ্জেম হাইকোর্টে এসেছিলেন সকাল সাড়ে ১০টায়।

এদিকে ওসি মোয়াজ্জেমের আইনজীবী সালমা সুলতানা জানান, রোববার হাইকোর্টে তার আগাম জামিন আবেদন উপস্থাপন করা হয়েছিল। আদালত সোমবার কজলিস্টে থাকবে বলে আদেশ দেন। এখন আপনারা তো জানেন তিনি গ্রেফতার হয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ৬ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে গায়ে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা চেষ্টা করা হয়। এর আগে ২৭ মার্চ নুসরাত মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ জানাতে সোনাগাজী থানায় যায়। থানার তৎকালীন ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন সে সময় নুসরাতকে আপত্তিকর প্রশ্ন করে বিব্রত করেন এবং তাঁর ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে দেন।

পরবর্তী সময়ে ওই ঘটনায় ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন। আদালতের নির্দেশে মামলটি তদন্ত করে ঢাকার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। তদন্ত শেষে গত ২৭ মে পিবিআই আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়। ওই দিনই মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল। তার পর থেকেই পলাতক ছিলেন মোয়াজ্জেম।

আরো খবর